28 C
Dhaka
আগস্ট ২, ২০২১

দায়িত্ব নিয়ে রাখী দাশ আজন্ম নারীদের পক্ষে কাজ করেছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক, কমিউনিটি নিউজ: নারী বীর মুক্তিযোদ্ধা রাখী দাশ সব সময়ই নারীদের নিয়ে কাজ করেছেন। দায়িত্ব নিয়ে রাখী দাশ আজন্ম নারীদের পক্ষে কাজ করেছেন।

আজ ১৯ ডিসেম্বর ২০২০ (শনিবার) বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় সংগঠনের প্রয়াত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, নারীনেত্রী এবং নারী আন্দোলনের নিবেদিত সংগঠক অ্যাড. রাখী দাশ পুরকায়স্থের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে অনলাইনে অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন্

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. ফওজিয়া মোসলেম।

কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আয়শা খানম রেকর্ড করা বক্তব্যে বলেন, ১৯৭০ সালে কিছুটা এবং ১৯৭২ থেকে নারী আন্দোলনের কাজ করতে যেয়ে একটা প্রজন্মের সাথে যুক্ত হই। প্রত্যেকের সাথে ছিল একটা আত্মিক সম্পর্ক। রাখী দাশ নারী আন্দোলনের এক বিশাল শক্তি। আমরা নারী আন্দোলনের সাথে নতুন প্রজন্মকে যুক্ত করতে তীব্র প্রচেষ্টা চালাই। তখন রাখী দাশ দায়িত্ব নিয়ে এগিয়ে আসেন।

প্রোগ্রাম অফিসার মোছাঃ ফজিলা খাতুন লতা বলেন, তিনি আমাদের কাছে ছিলেন এক বটবৃক্ষের মত, সকলকে ভালবাসতেন। তিনি বলতেন আমরা সবাই একই পরিবারের সদস্য।

ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক রেহানা ইউনূস বলেন, তিনি সর্বক্ষেত্রে বিচরণ করেছেন। এখনো কাজ করার সময় প্রতিমুহূর্তে তিনি সঙ্গে আছেন এমন অনুভব করি।

বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্ক এর সদস্য সচিব চঞ্চনা চাকমা বলেন, তিনি আদিবাসীদের অধিকার আন্দোলনে সবসময়ই যুক্ত ছিলেন।

আবৃতিকার লায়লা আফরোজ বলেন, রাখী দাশ সারাজীবন দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য কাজ করে গেলেন অথচ মৃত্যুর পর তাকে নিজ দেশ ছেড়ে অন্যদেশে দাহ করা হয়, সমাধিস্ত করা হলো এটা অত্যন্ত বেদনার। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু বলেন, রাখী দাশ এবছরের গত ৬ এপ্রিল সকলকে একলা করে বড় দু:সময়ে চলে যান। সংগঠনের এক অক্লান্ত পরিশ্রমী নিবেদিত প্রাণ ছিলেন তিনি। তাকে হারিয়ে আমরা বাকরুদ্ধ। সংগঠনের কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত নেটওয়ার্ক  গড়ে তুলতে তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে গেছেন।

সংগঠনের সহ-সাধারণ সম্পাদক মাসুদা রেহানা বেগম বলেন, আমাদের প্রায় ৫০ বছরের বন্ধুত্ব। তাকে নিয়ে স্মরণসভায় বলতে হবে এটি কখনো ভাবিনি। ইডেন কলেজে পড়ার সময় আমাদের যোগাযোগ।

সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত বলেন, রাখী জাতীয় পর্যায়ের এক পরিচিত মুখ ছিলো। সে ছাত্র রাজনীতি করার সময় সকল দায়িত্ব আন্তরিকতা ও দক্ষতার সাথে পালন করেছে। সে প্রাণোচ্ছল ভাবে চলত,মনের দিক থেকে তরুণ ছিলো সবসময়। একটা প্রতিকূল সময়ে পরিচিত মুখ হয়ে সে ছাত্রীদের নিয়ে আন্দোলন করে গেছে। পেশাগত জীবনেও সে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছে।

সাংবাদিক, কলামিস্ট ও রাজনীতিবিদ রণেশ মৈত্র বলেন, ৮০ এর দশকে আমাদের পরিচয় হয়। যত নারীকর্মী দেখেছি তারমত এমন দায়িত্বশীল, কর্তব্যনিষ্ঠ এবং একনিষ্ঠ মানুষ কমই দেখেছি। তার  মহিলা পরিষদের কাজে কোন ত্রুটি দেখিনি।

প্রয়াত রাখী দাশের পারিবারিক সদস্য বহ্নি দাশ পুরকায়স্থ বলেন, কাছ থেকে তাকে দেখেছি কিভাবে মানুষ হয়ে উঠতে হয়, সাহসী হতে হয় সর্বোপরি সৎ হতে হয়। সততার ব্যাপারে কখনো আপোশ করেনি।

সভাপতির বক্তব্যে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. ফওজিয়া মোসলেম বলেন, যতদিন মহিলা পরিষদ থাকবে ততদিন রাখী দাশকে আমরা স্মরণ করব। রাখীর মানুষের প্রতি  বিশেষ করে মাতৃস্থানীয় মানুষের শ্রদ্ধাবোধ ছিল প্রবল।

দায়িত্ব নিয়ে রাখী দাশ আজন্ম নারীদের পক্ষে কাজ করেছেন শিরোনামের সংবাদটির তথ্য বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে।

আরও সংবাদ

শখ থেকেই শুদ্ধাহারের পথচলা শিমির

কমিউনিটি নিউজ

চাকরি ছেড়ে ঘরে তৈরি খাবারে সফল তিনি

কমিউনিটি নিউজ

নারী উপার্জনকারী হলেও সে সহিংসতার শিকার হয়

কমিউনিটি নিউজ