27 C
Dhaka
জুন ১৯, ২০২১

চাঁপাইনবাবগঞ্জে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন, সংক্রমণের হার ৫৫%

করোনাভাইরাস

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী: চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা সংক্রমণের হার মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। এর পর থেকেই জেলাটিতে আলাদা করে সাত দিনের জন্য কঠোর লকডাউন জারি করেছে  জেলা প্রশাসন। সোমবার মধ্যরাত থেকে সারা বাংলাদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হবে। বিষয়টি জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, ‘লকডাউন’ চলাকালে জরুরি পরিসেবা ছাড়া সব যানবাহন ও ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে। সোমবার (২৪ মে) দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে আগামী সোমবার পর্যন্ত জরুরি পরিসেবা বাদে পুরো জেলা সাত দিনের কঠোর লকডাউন থাকবে। কঠোর লকডাউনে রেল যোগাযোগসহ সব প্রকার যাববহন বন্ধ থাকবে, তবে জরুরি পরিসেবা-অ্যাম্বুলেন্স ও পণ্যবাহী ট্রাক চালু থাকবে। আগামী সাত দিন ২৫ মে থেকে ৩১ মে পর্যন্ত বাইরের জেলা থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে কোনো পরিবহন ঢুকতে পারবে না এবং জেলা থেকে বাইরে যেতে পারবে না।

জেলা প্রশাসক আরো বলেন, লকডাউন চলাকালীন সব রকম দোকানপাট ও সাপ্তাহিক হাট বন্ধ থাকবে। তবে কাঁচাবাজার ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ও ফার্মেসি খোলা থাকবে। কেউ জরুরি প্রয়োজনে বাইরে গেলে অব্যশই মাস্ক পরিধান করে যেতে হবে। এমনকি জুম্মাসহ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে ২০ জনের বেশি অংশ নিতে পারবে না।

তিনি আরো বলেন, আম বাজারজাতকরণ ও পরিবহন করতে, আমের আড়তের পরিধি বাড়াতে হবে। তবে সরাসরি বাগান থেকে ট্রাকে আম পরিবহন করা যাবে। অনলাইনে অর্ডার নিয়ে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আম ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে। এছাড়াও শিল্প কলকারখানার শ্রমিকরা নিজস্ব পরিবহনে যাতায়াত করবে।

জরুরি পরিসেবা-কৃষি উপকরণ, খাদ্যশস্য পরিবহন, কোভিড টিকা, ত্রাণ বিতরণ, বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মী, ইন্টারনেট লাইন সংযোগ সংশ্লিষ্টরা লকডাউনের আওতার বাইরে থাকবেন। জেলা প্রশাসক সবাইকে সরকারি নির্দেশনা মেনে চলার জন্য বিশেষভাবে আহবান জানান।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. জাহাঙ্গীর আলম জানান, বর্তমানে জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার অনেক মানুষ সর্দি জ্বরে আক্রান্ত হলেও করোনা আতঙ্কে নমুনা পরীক্ষা না করিয়ে অসুস্থ শরীরইে অবাধে চলাচল করায় দ্রুত করোনা ছড়িয়ে পড়ছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এমন সময় স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্তের কথা জানালো যখন বাংলাদেশে চলমান সর্বাত্মক লকডাউন ধীরে ধীরে শিথিল করা হচ্ছে। সোমবার থেকে গণপরিবহন চলাচলের উপর থেকে বিধিনিষেধ তুলে দেয়া হয়েছে।  এদিন থেকেই বাংলাদেশের সর্বত্র লঞ্চ, ট্রেন ও আন্তঃজেলা বাসও চলাচল শুরু করেছে।

এদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে সর্বশেষ শনাক্তের হার ৫৫%, অর্থাৎ প্রতি একশো জনের নমুনায় ৫৫ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ  বলেন, গত ১৮ই মে থেকে জেলায় করোনাভাইরাসে সংক্রমণের হার উর্ধ্বমুখী ছিল। গত দুই দিন ধরে সেটা আরেকটু বেড়ে গেছে। “কখনো ৫৫%, কখনো তার চেয়ে একটু বেশি, কখনো একটু কম, এভাবে ধারাবাহিকভাবে সংক্রমণ উর্ধ্বমুখী প্রবণতা লক্ষ্য করছি। এমন পরিস্থিতি বিবেচনা করেই জেলাটিতে আলাদাভাবে লকডাউনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে । “আপাতত সাত দিনের লকডাউন দিয়েছি। প্রয়োজনে এটি আরো বাড়ানো হবে।

সংক্রমণ বাড়ার কারণ

জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইইডিসিআর এর পরিচালক অধ্যাপক ডা. তাহমিনা শিরিন বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাটি ভারত সীমান্তবর্তী হওয়ার কারণে সেখানে সংক্রমণ বেড়ে থাকতে পারে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে যেহেতু সংক্রমণের হার অনেক বেশি, তাই এটা একটা কারণ হতে পারে। তবে সেখানে সংক্রমণ বাড়ার মূল কারণ জানতে তারা তদন্ত শুরু করেছেন ।

এদিকে জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ সন্দেহ করছেন, জেলাটি থেকে ধান কাটার প্রচুর শ্রমিক দেশের অন্য জেলাগুলোতে গেছে এবং ঈদের আগে আবার ফিরেছে। এটা একটা কারণ হতে পারে।

এছাড়া, জেলাটিতে অনেক মানুষ রয়েছে যারা নির্মাণ কাজের শ্রমিক হিসেবে কাজ করে এবং তারা দেশের অন্য জেলায় যাতায়াত করে থাকে। সেই সাথে ঈদে ঢাকা থেকে অনেক মানুষ গ্রামে ফিরে যাওয়ার কারণেও সংক্রমণ বাড়তে পারে ।

ভারতীয় ভেরিয়ান্টটি এই সংক্রমণের উর্ধ্বমুখীতার পেছনে দায়ী হওয়ার আশঙ্কাতো আছেই। তবে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। বিষয়টি নিশ্চিত হতে এরইমধ্যে ৪২ জনের নমুনা তারা ঢাকায় পাঠিয়েছেন। তবে এখনো সেগুলোর প্রতিবেদন হাতে পাননি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, দেশে বর্তমানে করোনা সংক্রমণের হার ১৩.৫৬ শতাংশ। আর মৃত্যুহার ১.৫৭ শতাংশ। দেশে এ পর্যন্ত ৭ লাখ ৩০ হাজার ৬৯৭ জনের মধ্যে করোনা শনাক্ত করা হয়েছে। রোগটিতে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মারা গেছে ১২,৩৭৬ জন।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৯৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫৯ জনের মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদরে ৪৯ জন, শিবগঞ্জে তিন, গোমস্তাপুরে ছয় ও ভোলাহাটে একজন রয়েছেন। বর্তমানে জেলায় সংক্রমণের হার ৫৫ ভাগের উপরে।

স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে জেলার ২৫০ শয্যা হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ১৯ জন করোনা রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। জেলায় এ পর্যন্ত মোট ১২৭৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

কমিউনিটিনিউজ/ এমএএইচ

আরও সংবাদ

মাস্ক ছাড়াই করোনা ওয়ার্ডে ডিউটি, সাংবাদিক প্রবেশে বাধা

কমিউনিটি

দেশে আরো ৫৪ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৩৮৮৩

কমিউনিটি

গোদাগাড়ীতে কিশোর গ্যাংয়ের ৫ সদস্য গ্রেফতার

কমিউনিটি

আরইউজে সভাপতি সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত

কমিউনিটি

রাজশাহীতে আরো ১২ জনের মৃত্যু

কমিউনিটি

করোনায় আরো ৬৩ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৩৮৪০

কমিউনিটি