30 C
Dhaka
আগস্ট ১২, ২০২২

ব্র্যাক ব্যাংকে চাকরির সুযোগ

ব্র্যাক ব্যাংকে চাকরির সুযোগ

কমিউনিটিনিউজ ডেস্ক: করোনাকালীন চাকরির বাজারে চলছে ব্যাপক অস্থিরতা। চাকরি নামক সোনার হরিণটি দিন দিনই অধরা হয়ে উঠছে। এরই মধ্যে ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেডে ‘সিনিয়র ম্যানেজার’ পদে জনবল নিয়োগ দিবে। আগ্রহীরা আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড
বিভাগের নাম: রেগুলেটরি কমপ্লায়েন্স রিস্ক ম্যানেজমেন্ট: রিস্ক ম্যানেজমেন্ট বিভাগ

আরো পড়ুন:

পদের নাম: সিনিয়র ম্যানেজার
শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক/স্নাতকোত্তর
অভিজ্ঞতা: ১০ বছর
দক্ষতা: সংশ্লিষ্ট কাজে দক্ষতা
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: নির্ধারিত নয়
কর্মস্থল: ঢাকা

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা www.jagojobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ৩০ এপ্রিল ২০২১

সূত্র: জাগোজবস ডটকম

কমিউনিটিনিউজ/ এমএইচ

করোনা সংক্রমনে বেশি ঝুঁকি বাজার–গণপরিবহনে

কমিউনিটিনিউজ ডেস্ক: প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস প্রতিদিনই আক্রান্ত ও শনাক্তের নতুন নতুন রেকর্ড তৈরি হয়েছে। গত ৫ মার্চ থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত কারা বেশি আক্রান্ত হয়েছে এমন একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)।

আইইডিসিআর বলছে, করোনায় আক্রান্তদের বড় অংশই হয় বাজারে গেছেন, নয়তো গণপরিবহন ব্যবহার করেছেন।

প্রতিষ্ঠানটির তথ্য অনুযায়ী, যেসব জায়গা থেকে মানুষ বেশি সংক্রমিত হচ্ছে, সেগুলোর মধ্যে আরও রয়েছে উপাসনালয়, সভা-সেমিনারের মতো জনসমাগমস্থল, স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র, এক বিভাগ থেকে আরেক বিভাগে ভ্রমণ, সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া এবং পর্যটনকেন্দ্র। করোনায় আক্রান্ত রোগীদের হিস্ট্রি (ইতিহাস) পর্যালোচনা করে সংক্রমণ ছড়ানোর ক্ষেত্রে ঝুঁকিপূর্ণ এসব উৎসস্থল চিহ্নিত করা হয়েছে।

আইইডিসিআর বলছে,

  • ১. আক্রান্ত রোগীদের ৬১ শতাংশের বাজারে যাওয়া এবং গণপরিবহন ব্যবহারের ইতিহাস রয়েছে।
  • ২. সংক্রমিত হওয়া ৩০ শতাংশের বেশি মানুষ জনসমাগমস্থল এবং উপাসনালয়ে গিয়েছিলেন।
  • ৩. ৫ মার্চ থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত প্রায় সাড়ে আট হাজার করোনা রোগীর তথ্য পর্যালোচনা করেছে আইইডিসিআর।

ওই সাড়ে আট হাজার রোগীর তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, তাদের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবাকেন্দ্রে গিয়েছিলেন ২৬ শতাংশ, করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে এসেছিলেন ২২ শতাংশ। এ ছাড়া আন্তঃবিভাগ ভ্রমণ করেছিলেন ১৩ শতাংশ, সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন ১২ শতাংশ।

আরো পড়ুন:

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আইইডিসিআর আক্রান্ত রোগীদের ‘কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং’ (রোগীর সংস্পর্শে আসা সন্দেহভাজনদের শনাক্ত করা) এর কাজটি করে আসছে। এই সময় রোগীদের কাছ থেকে বেশ কিছু তথ্য সংগ্রহ করা হয়। সেগুলোর মধ্যে আছে শনাক্ত হওয়া ব্যক্তি সংক্রমিত হওয়ার আগে কোথায় কোথায় গিয়েছিলেন এবং কোথা থেকে সংক্রমিত হয়েছেন বলে ধারণা করেন। রোগীদের কাছ থেকে সংগৃহীত সব তথ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকেও সরবরাহ করা হয়।

আইইডিসিআরের উপদেষ্টা ড. মোশতাক হোসেন বলেন, করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকার লকডাউন ঘোষণা করেছে। তবে এর আদর্শ ব্যবস্থাটা হতো সবাইকে ঘরে রাখতে পারলেই। কিন্তু জীবন জীবিকার তাগিদে মানুষ বাইরে বের হচ্ছে। এ অবস্থায় সংক্রমণ কমাতে হলে তাদের সমস্যাগুলোও তো চিহ্নিত করে সমাধান করতে হবে। আমাদের উদ্দেশ্য হলো সংক্রমণ যেন না বাড়ে, সেটাকে নিয়ন্ত্রণ করা। কিন্তু সংক্রমণ যেভাবে দাবনলের মতো বাড়ছে, সেক্ষেত্রে আমাদের প্রতিটা পদক্ষেপই ঝুঁকি বিবেচনায় সুনির্দিষ্ট করে নিতে হবে।

মোশতাক হোসেন বলেন, অধিকাংশ মানুষ প্রয়োজনেই ঘর থেকে বের হচ্ছে, প্রয়োজন ছাড়া খুব মানুষই বের হচ্ছে। এখন যারা জীবিকার তাগিদে বের হতে বাধ্য হচ্ছে, তাদের তো জোর করে আবদ্ধ করে রাখা যাবে না। আর বের হওয়ার পর তাদের জন্য যদি গণপরিবহনের ব্যবস্থা না করা হয়, তাহলে তো তারা গাদাগাদি করেই যে যেভাবে পারে গন্তব্যে ছুটবে। এতে বরং তাদের মধ্যে সংক্রমণের ঝুঁকিটা বেড়ে যায়। তারচেয়ে সীমিত আকারে কিছু গণপরিবহন চালু করে দিয়ে স্বাস্থ্যবিধিটা যদি মানতে বাধ্য করা যায়, তাহলেই হয়তো ভালো হবে।

চার দিন ধরে দৈনিক মৃত্যু ৬০–এর বেশি

দেশে সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে নতুন রোগীর সঙ্গে মৃত্যুও খুব দ্রুত বাড়ছে। ১০ দিন ধরে প্রতিদিনই অর্ধশতাধিক মানুষের মৃত্যুর তথ্য দিচ্ছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এই ১০ দিনে ৫৯০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে চার দিন ধরে মৃত্যু ৬০–এর ওপরে। এই চার দিনে ২৬৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৬৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট ৯ হাজার ৫৮৪ জনের মৃত্যু হলো করোনায়। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩১ হাজার ৬৫৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাঁদের মধ্যে ৭ হাজার ৪৬২ জনের দেহে সংক্রমণ শনাক্ত হয়। পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণ শনাক্তের হার ২৩ দশশিক ৫৭ শতাংশ। আর এখন পর্যন্ত দেশে মোট ৬ লাখ ৭৩ হাজার ৫৯৪ জনের দেহে সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

২০১৯ সালের শেষ দিকে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে। ক্রমে তা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রথম সংক্রমণ শনাক্তের কথা জানানো হয় গত বছরের ৮ মার্চ। প্রথম মৃত্যুর খবর জানানো হয় ১৮ মার্চ। মে মাসের শেষ দিক থেকে সংক্রমণ দ্রুত ছড়াতে থাকে। জুন–জুলাই মাসে প্রথম দফায় সংক্রমণ চূড়ায় উঠেছিল। এরপর থেকে কমতে থাকে। মাঝে কিছুদিন ঊর্ধ্বমুখী হলেও গত ডিসেম্বরের মাঝামাঝি থেকে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছিল। এরপর থেকে আবার ক্রমে বাড়তে শুরু করে।

গত মার্চ থেকে দ্বিতীয় ঢেউয়ের আলামত পাওয়া যাচ্ছিল। ওই মাসের মাঝামাঝি থেকে রোগী ও মৃত্যু বাড়ছিল। অন্তত দুই সপ্তাহ ‘পূর্ণ লকডাউন’ ছাড়া সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না বলে মনে করছে কোভিড-১৯ জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

কমিউনিটিনিউজ/ এমএইচ

আরও সংবাদ

সৈনিক পদে চাকরির সুযোগ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে

কমিউনিটি নিউজ

কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে ৩২ পদে ২৩৮ জনের চাকরির সুযোগ

কমিউনিটি নিউজ

চাকরি দিচ্ছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতর

কমিউনিটি নিউজ

এসএসসি পাশে রেলওয়েতে চাকরি

কমিউনিটি নিউজ

এসএসসি পাশে ১৩৪ জনকে নিয়োগ দেবে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়

কমিউনিটি নিউজ

শক্তি ফাউন্ডেশনে বিশাল নিয়োগ

কমিউনিটি নিউজ