28 C
Dhaka
আগস্ট ১২, ২০২২

চাঁদ দেখা নিয়ে নবী (সা.) যা বলেছেন

ধর্ম ডেস্ক: চাঁদ দেখা নিয়ে নবীজি (সা.) কি বলেছেন তা আমরা কোরআন ও হাদিসের আলোকে আলোচনা করা হলো :

চাঁদ দেখা প্রসঙ্গে আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে বলেন, ‘লোকেরা আপনাকে নতুন মাসের চাঁদ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করে। আপনি তাদের বলে দিন, এটা মানুষের (বিভিন্ন কাজকর্মের) এবং হজের সময় নির্ধারণ করার জন্য।’ (সুরা আল-বাকারা, আয়াত : ১৮৯)

পবিত্র রমজান মাসের রোজা প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা এ মাস পাবে, সে যেন এ মাসে রোজা রাখে।’ (সুরা বাকারা, আয়াত : ১৮৫)

হাদিস শরিফে রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন—

তোমরা চাঁদ দেখে রোজা রাখো এবং চাঁদ দেখে ঈদ করো। কিন্তু যদি আকাশে মেঘ থাকে, তাহলে গণনায় ৩০ পূর্ণ করে নাও।
বুখারি, হাদিস : ১৯০৯; মুসলিম, হাদিস : ১০৮১

অন্য বর্ণনায় রাসুল (সা.) বলেন, ‘তোমরা (নতুন চাঁদ) না দেখা পর্যন্ত রোজা রেখো না এবং তা (নতুন চাঁদ) না দেখা পর্যন্ত রোজা ছেড়ে দিয়ো না।’ (মুআত্তা মালিক, হাদিস : ৬৩৫)

এই হাদিস দ্বারা বোঝা যায়, রমজান শুরু কিংবা ঈদ করার ব্যাপারটা চাঁদ দেখার ওপর নির্ভরশীল। কোনো এলাকায় চাঁদ দেখা না গেলে তাদের জন্য রোজা রাখা নিষিদ্ধ।

আরো পড়ুন:

চাঁদ দেখা গেলে বুধবার রোজা

রোজা রেখে টিকা নিলে সমস্যা নেই

ইতালিতে রমজান শুরু, বিধিনিষেধে তারাবি

চাঁদ দেখা যাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো এলাকার প্রত্যেকে দেখা জরুরি নয়। বরং বিশ্বস্ত কোনো ব্যক্তি দেখলেও রোজা শুরু করার অবকাশ রয়েছে।

কেউ কেউ মনে করেন, এই হাদিসের মাধ্যমে একই দিনে বিশ্বব্যাপী রোজা ও ঈদ পালন করা সাব্যস্ত হয়। তাদের দাবি, মহান আল্লাহ মধ্যপ্রাচ্যকে মধ্যস্থল বানিয়েছেন। তাই সেখানে চাঁদ দেখা গেলে সারা বিশ্বে রোজা ও ঈদ পালন করতে হবে! অথচ পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘তারা আপনাকে নতুন চাঁদ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে। বলুন, তা হলো মানুষ ও হজের জন্য সময় নির্দেশক।’ (সুরা বাকারা, আয়াত : ১৮৯)

এ আয়াতের ব্যাখ্যায় তাফসিরবিদরা বলেন, এখানে ‘আহিল্লাহ’ শব্দ আনা হয়েছে, যার অর্থ একাধিক নতুন চাঁদ, যা একেক উদয়স্থলে একেক দিন উদিত হয়।

ইসলামের মৌলিক রুকন বা ভিত্তি পাঁচটি। এর মধ্যে রোজা ও হজ চাঁদ দেখার সঙ্গে সম্পৃক্ত।

কমিউনিটিনিউজ/ এমএএইচ

ইতালিতে রমজান শুরু, বিধিনিষেধে তারাবি

প্রবাস ডেস্ক, কমিউনিটিনিউজ: ইতালিতে আজ  (১৩ এপ্রিল) মঙ্গলবার থেকে শুরু হলো রোজা। সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে স্থানীয় ঘোষণা অনুযায়ী একই দিন থেকে ইতালিসহ ইউরোপের অন্যান্য দেশে থাকা ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা রোজা রাখতে পারবেন।

স্থানীয় সময় সোমবার (১২) ইতালির বিভিন্ন মসজিদে তারাবি নামাজ আদায় করেছেন প্রবাসী বাংলাদেশিসহ অন্যান্য দেশের মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষেরা। করোনা পরিস্থিতির জন্য গতবারের মতো এবারও সবকিছু সীমিত পরিসরে করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

আরো পড়ুন:

রাজশাহী-বগুড়ায় যুক্ত হচ্ছে ৫ টি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা

রমজানে প্রবাসীদের কর্মঘণ্টা কমালো আমিরাত

দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকারের প্রতি প্রবাসীদের অনুরোধ

এ বিষয়ে তরপিনাত্তারা টিএমসি মসজিদের খতিব মাওলানা হুমায়ুন রশিদ রাজী বলেন, করোনার জন্য কিছু বিধিনিষেধ রয়েছে। আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে এ বছর আমরা খতম তারাবি আদায় করছি না। এশার নামাজ আদায়ের পর তারাবি আট রাকাত পড়ানো হচ্ছে। এছাড়াও এখানে রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত কারফিউ রয়েছে।

এ সময় তিনি বাংলাদেশি মুসলিমসহ অন্যান্য দেশের মুসলিমদের তারাবির বাকি নামাজ বাসায় গিয়ে আদায় করে নিতে অনুরোধ জানান। আজ ইতালিতে ভোর ৪টা ৪০ মিনিট সেহরির শেষ সময় ছিল। ইফতার হবে সন্ধ্যা ৭টা ৫০ মিনিটে।

কমিউনিটিনিউজ/ এমএএইচ

আরও সংবাদ

আজ পবিত্র আশুরা, জানুন ইতিহাস

কমিউনিটি নিউজ

কিয়ামতের দিন কাফিররা যেসব কারণে আফসোস করবে

কমিউনিটি নিউজ

পাগলা মসজিদের দানবাক্সে গৃহবধূর চিঠি, অবাক ম্যাজিস্ট্রেট

কমিউনিটি নিউজ

২১ জুলাই (বুধবার) পবিত্র ঈদুল আজহা

কমিউনিটি নিউজ

নিরাপদ আশ্রয় ও রিজিক পেতে দোয়া করুন

কমিউনিটি নিউজ

১২ নির্দেশনায় মসজিদেই হবে ঈদের নামাজ

কমিউনিটি নিউজ