31 C
Dhaka
সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১

ভারত ও নেপালে সয়াবিন রপ্তানি, বাড়তে পারে মৎস্য ও প্রাণিজ খাদ্যের দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক, কমিউনিটিনিউজ: বাংলাদেশ থেকে ভারত ও নেপালে রফতানি হচ্ছে সয়াবিন মিল। এই রফতানির ফলে মৎস্য ও প্রাণিজ খাদ্যের দামে প্রভাব পড়তে পারে বলে শঙ্কা করছেন ফিডমিল মালিকদের সংগঠন ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ফিআব)। এই রফতানি বন্ধে বাণিজ্য, কৃষি এবং মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয়ে ইতোমধ্যে চিঠি দিয়েছে সংগঠনটি।

জানা গেছে, বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম সয়াবিন আমদানিকারক দেশ বাংলাদেশ। ভোজ্যতেলের পাশাপাশি সয়াবিন থেকে বাই প্রোডাক্ট বা বর্জ্য মৎস্য ও প্রাণিজ খাদ্য উৎপাদনের প্রধান উপাদান। বাংলাদেশে বিভিন্ন ফিডমিল সয়াবিন মিলসহ অন্যান্য উপাদানের মিশ্রণে মৎস্য ও প্রাণিজ খাদ্য উৎপাদন করে থাকে। বর্তমানে সয়ামিল বাইরে চলে গেলে খাদ্যের দাম আরো বাড়তে পারে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সম্প্রতি বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বরাবর ‘পোলট্রি, ফিশ ও ক্যাটল ফিড তৈরির অন্যতম উপকরণ সয়াবিন মিল রফতানি বন্ধে’র জন্য বিভিন্ন মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট দফতরে চিঠি দেয়া হয়। ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ফিআব) সাধারণ সম্পাদক মো: আহসানুজ্জামান স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, দেশে সয়াবিন মিলের চাহিদা বছরে ১৮-২০ লাখ মেট্রিক টন। ৫৫-৬০ ভাগ সয়াবিন স্থানীয়ভাবে এবং বাকি ৪০-৪৫ ভাগ আমদানি করে চাহিদা পূরণ করতে হয়।

মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের চিঠি দিয়েছে চিঠিতে সংগঠনটি জানায়, মুরগির গোশত, দুধ ও ডিম উৎপাদনে ব্যয়ের প্রায় ৭০ শতাংশ খরচ হয় খাদ্যের পেছনে। ফিড মিলে মৎস্য ও প্রাণী খাদ্য উৎপাদনে ৭০-৭৫ ভাগ ব্যয় হয় কাঁচামাল সংগ্রহে। ভুট্টা, চালের কুড়া, আটা, ময়দা, সরিষার খৈল, তেল, ভিটামিন ও মিনারেল ইত্যাদি ফিডের প্রধান কাঁচামাল। দেশের ফিডমিলগুলোতে ব্যবহৃত কাঁচামালের বেশির ভাগই বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। সয়াবিন মিল ও মৎস্য খাদ্যের একটি প্রধান উপাদান। এর ব্যবহার ২৫-৩৫ ভাগ পর্যন্ত হয়ে থাকে।

জানা যায়, বাংলাদেশে সিটি গ্রুপ এবং মেঘনা গ্রুপ ভারতে সয়াবিন মিল পাঠাচ্ছে। তবে ঠিক কী পরিমাণ পাঠানো হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ বিষয়ে মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদ কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হননি। রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর সচিব (উপসচিব) মো: ইফতেখার আহমেদ চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, মনে হয় রফতানি হয়। এ বিষয়ে পণ্য শাখার পরিচালক আলতাফ হোসেন ভুইয়ার সাথে কথা বলতে বলেন। আলতাফ হোসেন ভুইয়া  বলেন, সয়াবিন মিল ভারতে কতটুকু রফতানি হয় জানি না। তবে নেপালে বেশ হয়। এ ব্যাপারে গবেষণা কর্মকর্তা (পরিসংখ্যানের দায়িত্বে) মেহেদুন নবীর সাথে কথা বলতে বলেন। মেহেদুন নবী জানান, সয়াবিন মিল নয় ভারত ও নেপালে সয়াবিনের কেক পাঠানো হয়। মৎস্য ও প্রাণিজ খাদ্য উপাদান সয়ামিল রফতানি হয় না বলে জানান তিনি।

তবে সম্প্রতি ভারতে পাঠানো সয়াবিন মিলবাহী একটি ট্রাকের সামনে টানানো ব্যানারে ‘সয়াবিন মিল’ হিসেবেই উল্লেখ রয়েছে। ব্যানারের নিচে লেখা, ‘বেনিফিট ইন্ডিয়ান লাইভ স্টোক ফার্মার্স। ভারতের আইবি গ্রুপ এই সয়াবিন মিল আমদানি করেছে। ওই গ্রুপের ওয়েবসাইটে গিয়ে দেখা যায়, এটি প্রাণিজ খাদ্য উৎপাদন ও সরবরাহ করে থাকে। এ বিষয়ে ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের (ফিআব) সাধারণ সম্পাদক মো: আহসানুজ্জামান বলেন, কেক মানে সয়াবিন ওয়েল কেক। সোজা বাংলায় এটা খৈল। সরিষার যেমন খৈল হয়, এটা সয়াবিনের খৈল। পোলট্রি ক্যাটল ফিডে ব্যবহৃত হয়। ইন্ডিয়াতে দাম বেড়ে গেছে, তাই বাংলাদেশ থেকে নিচ্ছে। অথচ আমাদের দেশেও এটার ক্রাইসিস। প্রাণিজ খাদ্যের উপাদান হিসেবে সেখানে ব্যবহৃত হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের তথ্যানুযায়ী, ২০১৯ সালে বিশ্বব্যাপী সয়াবিন তেল উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ৫ কোটি ৮০ লাখ টন। ২০২০ সালে এসে সয়াবিন তেল উৎপাদনকারী বিভিন্ন দেশে সয়াবিন উৎপাদিত হয়েছে ৬ কোটি ১০ লাখ টন উৎপাদনকারী দেশগুলো সয়াবিনের রফতানি শুল্ক বাড়ানোর কারণেই আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়েছে।

জানা গেছে, উৎপাদনকারী দেশগুলোর চাহিদা মিটিয়ে বিশ্বে উৎপাদিত সয়াবিন তেলের মাত্র ১৮ দশমিক ৬ শতাংশ বা ১ কোটি ২৬ লাখ টন তেল আসে আন্তর্জাতিক বাজারে। সয়াবিন তেল আমদানিকারক দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। সবচেয়ে বেশি তেল আমদানি করে ভারত। এরপরই আছে আলজেরিয়া।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তেলজাতীয় ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্পের পরিচালক মো: জসিম উদ্দিন বলেন, বর্তমানে দেশে ৭৮ হাজার ৭৫০ হেক্টর জমিতে সয়াবিন চাষ হয়। প্রতি হেক্টর জমিতে দুই থেকে আড়াই টন সয়াবিন উৎপাদন হয়ে থাকে। সে হিসাবে বছরে এক লাখ ৫৭ হাজার ৫০০ টন থেকে এক লাখ ৯৬ হাজার ৪৭৫ টন উৎপাদন হয়ে থাকে। এসব জমি থেকে পাওয়া সয়াবিন নিষ্কাশনে ব্যবহৃত না হয়ে পোলট্রি ও মাছের খাদ্য উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয় বলে জানান এই কর্মকর্তা।

চিঠিতে আরো বলা হয়, দেশের সয়াবিন মিল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো সয়াবিন সিড শুল্কমুক্ত (শূন্য) ভাবে আমদানি করে সয়াবিন তৈল উৎপাদন করে এবং বাই প্রডাক্টস হিসেবে সয়াবিন মিল দেশীয় বাজারে বিক্রি করে; যার একমাত্র ব্যবহারকারী পোলট্রি, মৎস্য ও ক্যাটল ফিড উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান এবং সাধারণ খামারিরা। বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিন তেলের মূল্যবৃদ্ধির সাথে সাথে উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের উৎপাদিত পণ্যের মূল্য ক্রমাগত বৃদ্ধি করে চলেছে। অতীতে পাশের দেশ ভারত থেকে সয়াবিন মিল আমদানি করা হলেও বর্তমানে ওই দেশে সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় আমেরিকা, ব্রাজিল আর্জেন্টিনা হতে কিছু কিছু সয়াবিন মিল বাংলাদেশে আমদানি হচ্ছে। বাংলাদেশকে মূলত নির্ভর করতে হচ্ছে স্থানীয় সয়াবিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর। বর্তমানের মিল ও ভুট্টাসহ শিল্পে ব্যবহৃত প্রতিটি কাঁচামালের মূল্য অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধির ফলে ফিডের মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে।

অন্য দিকে উৎপাদিত মাছ, মুরগি, দুধ, ডিম এবং গবাদি পশুর মূল্য নিম্ন পর্যায়ে থাকার কারণে খামারিরা চরম লোকসানের মধ্য দিয়ে খামার পরিচালনা করতে বাধ্য হচ্ছে। এমনকি অনেক খামার বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে দেশে সয়াবিন মিলের চরম সঙ্কট থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশ থেকে ভারতে সয়াবিন মিল রফতানির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। এই সংবাদ প্রচারের পর স্থানীয় সয়াবিন মিল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো সয়াবিন মিলের দাম কেজিতে ৪-৫ টাকা বৃদ্ধি করেছে এবং সরবরাহ কমিয়ে দিয়েছে। ফলে কৃত্রিম সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে প্রতি কেজি সয়াবিন মিল ৫২-৫৪ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ভারতে সয়াবিন মিল রফতানি অব্যাহত থাকলে এ মূল্য আরো বৃদ্ধি পাবে এবং সয়াবিন মিলের অভাবে অনেক ফিডমিলের উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাবে।

চিঠিতে ফিআব সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে করোনাকালীন সঙ্কটের মধ্যে আছি। দেশের চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা এ সময় বেশি মাছ, গোশত, ডিম গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছেন। আমরা খামারিদের সাথে নিয়ে এ শিল্প বাঁচিয়ে রেখে দেশের মানুষের প্রোটিনের চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে সরকারকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছি।

কমিউনিটিনিউজ/এমএইচ

আরও সংবাদ

রাজশাহীতে শিক্ষিকার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

কমিউনিটি নিউজ

রাজশাহীতে বেড়েছে মাছের দাম, মুরগির কেজি ২৬০ টাকা

কমিউনিটি নিউজ

বন্ধুর প্রেমিকাকে বিয়ে করতে বন্ধুকে খুন

কমিউনিটি নিউজ

আজ রাতেই দেশ ছাড়ছেন সাকিব-মোস্তাফিজ

কমিউনিটি নিউজ

হাওর অঞ্চলের মৎস্যসম্পদ উন্নয়নে ব্যাপক পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

কমিউনিটি নিউজ

যেসব শর্ত মানলে মুক্তি পাবেন খালেদা

কমিউনিটি নিউজ