27 C
Dhaka
আগস্ট ১২, ২০২২

ঘুম ছাড়াও যেসব বিশ্রাম খুবই গুরুত্বপূর্ণ

জীবন-যাপন ডেস্ক,কমিউনিটি নিউজ: একটানা কাজ করতে গিয়ে ক্লান্তিতে চোখ বুজে আছে অনেকের। মনে হয় হয়তো ঘুমালেই সব ক্লান্তি ভুলে যেতে পারেন। কিন্তু না, একটু বিশ্রাম নিলেই সব ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে। নিজের যত্ন নেওয়ার সবচেয়ে ভালো উপায় বিশ্রাম নেওয়া। সমীক্ষায় দেখা গেছে, মানুষের ভালো থাকার সাথে পর্যাপ্ত বিশ্রামের সম্পর্ক সমানুপাতিক।

ঘুমের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন লিখা হয়েছে। অজস্র গবেষণাও হয়েছে।ব্রিটিশ সাংবাদিক ক্লডিয়া হ্যাম্মন্ড ২০১৪ সালে ১৩৫টি দেশের ১৮ হাজার মানুষের ওপর সমীক্ষা চালায়। সমীক্ষায়, সেসব মানুষের মধ্যে দুই তৃতীয়াংশই ঘুম থেকে বেশি গুরুত্ব দেন বিশ্রামকে। আধুনিক সময়ের ব্যস্ততায় শরীরের বিশ্রাম নেওয়ার সময় কমে আসছে।

প্রতিটি মানুষের জন্য প্রতিদিন সাতটি নিয়ম মেনে চলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেগুলো হলো:

১.শারীরিক বিশ্রাম: প্রথমত শারীরিক বিশ্রাম আমাদের বেশি দরকার। এটি নিষ্ক্রিয় আবার সক্রিয়ও হতে পারে। নিষ্ক্রিয় হলো ঘুম আর সক্রিয় বিশ্রাম হলো ইয়োগা, ম্যাসেজ থেরাপি।

২. মানসিক বিশ্রাম: কিছু মানুষ আছে, যারা কফি পান করে দিন শুরু করেন। কিন্তু সারাদিন সব ভুলে যান। এরা রাতে ঘুমালেও বিশ্রাম পায় না। সাত-আট ঘণ্টা ঘুমালেও ব্রেইন শান্ত হয়না। এই বিপদ থেকে বাঁচতে কাজের ফাঁকে আপনাকে বিশ্রাম নিতে হবে।২ ঘণ্টা অন্তর অন্তর ছোট ব্রেক নিন। শান্ত থাকুন। দেখবেন শরীর সতেজ হচ্ছে।

৩. সংবেদনশীল বিশ্রাম: উজ্জ্বল আলো, কম্পিউটার থেকে আপনাকে কিছুটা সময় ছুটি নিতে হবে। কম্পিউটারে টানা কাজ করলে শরীরের ‘সেন্সরে’ সমস্যা হয়। চোখ, মস্তিষ্ক অস্থির হয়। তাই বিশ্রামের জন্য দিনের মধ্যভাগে চোখ বন্ধ করে মিনিট খানেক গা এলিয়ে দিতে হবে।

৪. সৃজনশীল বিশ্রাম: যারা নতুন নতুন আইডিয়া খুঁজেন, তাদের জন্য এই বিশ্রাম বেশি জরুরি। সৃজনশীল বিশ্রাম ভেতরের শক্তিকে জাগায়। কবে ঝরনা দেখেছেন মনে করতে পারেন? কবে প্রথম পাহাড়ি পথ ধরে হাঁটতে হাঁটতে পাখির গান শুনেছেন, মনে আছে? যদি না থাকে তবে আপনাকে সৃজনশীল বিশ্রাম নিতে হবে। অফিসে নিজের বসার জায়গাটাও এমনভাবে করা উচিত, যেখান থেকে একটু সবুজে চোখ রাখা যায়।

৫. আবেগীয় বিশ্রাম: আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। যারা এ ধরনের বিশ্রাম নেন তাদের কথা শুনলেই বোঝা যায়। ‘কেমন আছেন’- তিনি ভালো থাকলে উত্তরে অবশ্যই বলবেন, ‘ঠিকঠাক আছি।’

৬. সামাজিক বিশ্রাম: আবেগের বিশ্রামের সাথে সামাজিকতার যোগসূত্র আছে। বিচ্ছেদ, আর্থিক টানাপোড়েনের দিনগুলোয় আবেগের বিশ্রাম দরকার। তাই ধৈর্য অনুশীলন করা খুব জরুরি।

৭. আধ্যাত্মিক বিশ্রাম: এই বিশ্রাম শরীরের সাথে মনের সংযোগ ঘটায়। এ জন্য ধর্ম অনুযায়ী প্রতিনিয়ত সবার প্রার্থনা করা দরকার। প্রয়োজনে ধ্যান করতে হবে।

আরও সংবাদ

ঢাকায় নিম্ন আয়ের বস্তিবাসীরা বায়ু দূষণসহ নানা ঝুঁকির মুখে

কমিউনিটি নিউজ

কোন সময় পানি খেলে বেশি উপকার?

কমিউনিটি নিউজ

কোনটা খাবেন আঙ্গুর না কিসমিস

কমিউনিটি নিউজ

সারা বছর ফ্রিজে টমেটো সংরক্ষণ করবেন যেভাবে

কমিউনিটি নিউজ

বুধবার ঢাকার যেসব মার্কেট বন্ধ থাকে

কমিউনিটি নিউজ

কোন বয়সে দিনে কয়টি ডিম খাবেন

কমিউনিটি নিউজ