27.5 C
Dhaka
আগস্ট ২০, ২০২২

কামারাঙা কেন খাবেন জেনে নিন

কামারাঙার পুষ্টিগুণ এবং স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে অনেক

স্বাস্থ্য ডেস্ক: কামারাঙা আমদের দেশের বেশ জনপ্রিয় একটি ফল। কামরাঙা যেমন পুষ্টি জোগায়, তেমনি নানা রোগ প্রতিরোধের কাজেও লাগে। কামারাঙার পুষ্টিগুণ এবং স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে অনেক।

জেনে নিন কেন খাবেন কামারাঙা_____

পুষ্টিগুণ: প্রতি ১০০ গ্রাম কামরাঙায় শক্তি মেলে ৩১ কিলোক্যালরি। শর্করা ৬.৭৩ গ্রাম, চিনি ৩.৯৮ গ্রাম, খাদ্য ফাইবার ২.৮ গ্রাম, স্নেহ ০.৩৩ গ্রাম, প্রোটিন ১.০৪ গ্রাম, ভিটামিন সি ৩৪.৪ মিলিগ্রাম ছাড়াও কামরাঙায় পাওয়া যায় ভিটামিন এ, ফসফরাস, পটাশিয়াম ও জিঙ্ক।

উপকারিতা:

১. প্রদাহ বিরোধী (Anti Inflammatory) –
কামরাঙ্গা ফলে ব্যতিক্রমী পরিমাণে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা ত্বকের ব্যাধিগুলি ডার্মাটাইটিসের মতো প্রতিরোধ করতে পারে। ভিটামিন সি এর উপস্থিতি শরীর থেকে টক্সিনগুলি বের করে দেয় এবং শরীরকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।

২. হার্ট বান্ধব (Heart-friendly) –
কামরাঙ্গা ফলটি সোডিয়াম এবং পটাসিয়াম সমৃদ্ধ যা দেহে ইলেক্ট্রোলাইট হিসাবে কাজ করে যা ফলস্বরূপ রক্তচাপ বজায় রাখতে সহায়তা করে। এই খনিজগুলি শরীরে নিয়মিত হার্টবিট এবং স্বাস্থ্যকর রক্ত প্রবাহকেও নিশ্চিত করে

৩.ওজন হ্রাস করে (Promotes weight loss) –
কামরাঙ্গা ফলের মধ্যে নগণ্য পরিমানে ক্যালোরি রয়েছে; অতএব, ক্ষুধা যন্ত্রণা কমানোর জন্য এটি একটি সুন্দর নাস্তা হতে পারে। তদুপরি, ফলের মধ্যে থাকা ফাইবারের উপাদানগুলি বিপাকের গতি বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে যা আপনার ওজন হ্রাস করতে সহায়তা করে। অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণের সম্ভাবনা কমিয়ে ফাইবার আপনাকে দীর্ঘক্ষণ সতেজ থাকতে সাহায্য করে।

৪. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে (Regulates blood pressure) –
কামরাঙ্গা ফলের ক্যালসিয়ামের উপস্থিতি রক্তনালী এবং ধমনীতে স্ট্রেস উপশম করে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের মতো হার্ট সমস্যার ঝুঁকি হ্রাস করে। প্রেসার কমিয়ে রক্ত প্রবাহকে কার্যকর করে তোলে। এতে করে দেহে তারল্যের ভারসাম্য বজায় থাকে।

এছাড়াও ত্বকের সৌন্দর্য কামরাঙার জুড়ি নেই। এ ছাড়া যারা ব্রণের সমস্যায় ভুগছেন, তাঁদের জন্য কামরাঙা ওষুধের বিকল্প হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কামরাঙায় থাকা জিঙ্ক ও অন্যান্য উপাদান ব্রণ হওয়ার জন্য যেসব ব্যাকটেরিয়া দায়ী তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে, সেই সঙ্গে হরমোনের তারতম্য নিয়ন্ত্রণেও সক্ষম।

ঠান্ডা, সর্দি, কাশি, জ্বরের জন্য অত্যন্ত উপকারী এই ফলটি। কামরাঙা মুখে রুচি ফিরিয়ে আনে, সেই সঙ্গে মুখের নানা রোগের বিরুদ্ধেও লড়ে।প্রাকৃতিক আঁশপূর্ণ এই ফলটি ওজন কমাতেও কার্যকর। অন্যদিকে কামরাঙায় ক্যালরি নেই বললেই চলে। তাই ওজন বাড়ানোয় কোনো ভূমিকা রাখারই সুযোগ নেই ফলটির।

কামরাঙা মুখের রুচি ও হজমশক্তি বাড়ায়। পেটের ব্যথা উপশমে কামরাঙা কার্যকর। কামরাঙায় আছে এলজিক অ্যাসিড। এটি অন্ত্রের ক্যানসার প্রতিরোধ করে। মাথাব্যথা কিংবা হাড়ের সংযোগস্থলের ব্যথা উপশমেও কামরাঙার জুড়ি নেই। নিয়মিত কামরাঙা খেলে এগুলো সহজেই এড়ানো যায়।

উচ্চ রক্তচাপে ভোগা রোগীর জন্যও কামরাঙা উপকারী। যাঁরা দীর্ঘদিন ধরে উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন তাঁরা নিয়ম করে এক ফালি কামরাঙা খেতে পারেন।হৃৎস্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্যও কামরাঙা খেতে পারেন। কামরাঙায় থাকা প্রাকৃতিক উপাদানগুলো হৃদ্রোগ প্রতিরোধে বিশেষ কার্যকর।

বি দ্র :যাদের কিডনির রোগ রয়েছে তাদের জন্য এই কামরাঙ্গা ক্ষতিকারক (বিষাক্ত) প্রভাব ফেলতে পারে। কামরাঙ্গাতে থাকা নিউরোটক্সিন পদার্থগুলি মস্তিষ্ককে প্রভাবিত করতে পারে এবং স্নায়বিক অসুস্থতা সৃষ্টি করতে পারে।

কমিউনিটিনিউজ/এমএএইচ

আরও সংবাদ

সিদ্ধ ডিম রেখে কতক্ষণ পর খাওয়া নিরাপদ?

কমিউনিটি নিউজ

কোথায় কত ঘন্টা বাঁচতে পারে ওমিক্রন!

কমিউনিটি নিউজ

দেশে করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণ দুই বাড়ছে

কমিউনিটি নিউজ

ইউরোপে সাড়ে ৭ কোটি ছাড়িয়েছে আক্রান্ত

কমিউনিটি নিউজ

২৪ ঘণ্টায় ৫ জনের মৃত্যু

কমিউনিটি নিউজ

হঠাৎ সর্দিজ্বর হলে কী করবেন?

কমিউনিটি নিউজ