27 C
Dhaka
ডিসেম্বর ২, ২০২২

আড়ানী রেলওয়ে স্টেশনে বিশ্রামাগার ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন

রেলওয়ে স্টেশনে বিশ্রামাগার ভিত্তিপ্রস্তর

নিজস্ব প্রতিবেদক,বাঘা (রাজশাহী): রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী রেল স্টেশনে প্রথম শ্রেণির বিশ্রামাগারের ভিত্তিপ্রস্ত উদ্বোধন করা হয়েছে। শনিবার বেলা সাড়ে ১২ টায় বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভাগীয় প্রকৌশলী-২ (পাকশি) আব্দুর রহিম উদ্বোধন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রেলওয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী রাজশাহী আবু জাফর, সিনিয়র উপ-সহকারি প্রকৌশলী বাবুল আকতার, আড়ানী রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাষ্টার সদরুল ইসলাম, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি রহিত হাসান, স্থানীয় আমিরুল ইসলাম, হুসেন আলী সরদার প্রমুখ।

সূত্রে জানা যায়,পরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব শাহরিয়ার আলম এমপি’র পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্রামাগারটি নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৭ লক্ষ টাকা। কাজটি সর্ম্পূণ করবেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সফল এন্টারপ্রাইজ (রাজশাহী) এর স্বর্তাধিকারী আলাল পারভেজ ওরফে লুলু।

দেড় লাখ টাকা হলে বাঁচবে শিশু নাইম

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা (রাজশাহী): অ্যাপেন্ডিসাইড ও মূত্রনালির সমস্যায় ভুগছে ৫ বছরের শিশু নাইম হোসেন। অপারেশনসহ তার চিকিৎসার জন্য দেড় লাখ টাকার প্রয়োজন। কিন্তু এ অর্থ ব্যয় করার সাধ্য তার গরিব পরিবারের নেই। কী করে ছেলে বাঁচাবে এ নিয়ে চরম শঙ্কায় আর উৎকণ্ঠায় আছেন নাইম হোসেন মা-বাবা ও নানা।

নাইম হোসেন রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের জোতরঘু গ্রাামের হতদরিদ্র দিন মুজুর নান্টু হোসেনের নাতী ও হাবিব হোসেনের ছেলে। শিশুটির নানা ও বাবা নিরুপায় হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ দেশের হৃদয়বান ও বিত্তবান মানুষের কাছে সাহায্যের প্রার্থনা করেছেন।

এ বিষয়ে নাইম হোসেনের নানা নান্টু হোসেন জানান, ৭ বছর আগে জামনগর পূর্বপাড়া গ্রামের দিনমুজুর হাবিব হোসেনের সাথে মেয়ে তুসি খাতুনের বিয়ে দেয়া হয়। মেয়ের সংসারে অভাব দুর হয়না। এরমাঝে নাতী নাইম হোসেনের জন্ম হয়। জন্মের কিছুদিন পর থেকে আমার কাছে আছে। হটাৎ মাস দুয়েক আগে পেটে অত্যান্ত ব্যাথা করছিল। নাতীকে মেডিকেলে নিতে হবে। নিজের কাছে টাকা নেই।

এ সময় আমার বাড়ির পাশে নাসির উদ্দিন মাষ্টার ও আলমগীর হোসেন সেন্টুর কাছে থেকে দুই হাজার টাকা নিয়ে নাতীকে মেডিকেলে নিয়ে যায়। এ সময় অ্যাপেন্ডিসাইড ও মূত্রনালির সমস্যা বলে ডাক্তার জানান।

ডাক্তার অ্যাপেন্ডিসাইডের অপারেশন করেন। তারপর তাকে বাড়িতে আনা হয়। পূনরায় ব্যাথা শুরু হয়। আবার নিরুপায় হয়ে পড়েছি। বর্তমানে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৯ নম্বর ওয়ার্ডেও ২৮ নম্বর বেড়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক প্রফেসার ডা. নওশাদ আলীর অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। অর্থের অভাবে নাতীর চিকিৎসা করাতে পারছিনা।

আমি অতিদরিদ্র একজন দিনমুজুর মানুষ। আমি আড়ানীর রেল ব্রিজের পশ্চিম পাশে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সহযোগিতায় গ্রেটম্যান হিসেবে কাজ করতাম। কিন্তু এই করোনাকালে এটাও বন্ধ হয়ে গেছে।

তবে আমার ৬ শতাংশ জমি আছে। অবশেষে নাতীকে বাচানোর জন্য এই জমিটুকু বিক্রি করতে হবে। এই জমির ওপর একটি টিনের ছাপড়াঘর তুলে কোনোমতে বসবাস করছেন নান্টু। এটিও নাতীর চিকিৎসার জন্য বিক্রি করতে হবে বলে কথা বলতে বলতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।।

অভাবের সংসারে নুন আনতে পান্তা ফুরায়। এখন নাতীর চিকিৎসা করাব কীভাবে? এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তিনি।
নাতী নাইম হোসেনকে নিয়ে নানা নান্টু হোসেন দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। নিরুপায় হয়ে দেশের হৃদয়বান ও বিত্তবান মানুষের কাছে সাহায্যের প্রাার্থনা করেছেন।

  • সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা-নান্টু হোসেন, বিকাশ নম্বর ০১৭৮৯-৭৪০২৯৭ (ব্যক্তিগত)

কমিউনিটিনিউজ/ এমএএইচ

আরও সংবাদ

রাজশাহীতে গাঁজাসহ যুবক আটক

কমিউনিটি নিউজ

রাজশাহী কলেজে চালু হলো মেধাবৃত্তি

কমিউনিটি নিউজ

পুলিশের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে নিজের মোটরসাইকেলে আগুন দিলেন যুবক

কমিউনিটি নিউজ

২০ টাকার নাপা সিরাপ ৩৫ টাকায় বিক্রি, জরিমানা

কমিউনিটি নিউজ

আমের দামে খুশি রাজশাহীর চাষিরা

কমিউনিটি নিউজ

রামেক হাসপাতালে ভর্তি সাবেক খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম

কমিউনিটি নিউজ