31 C
Dhaka
সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১

স্কুল-কলেজ খুলতে রাজশাহীতে চলছে জোর প্রস্তুতি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী: স্কুল-কলেজ খুলতে রাজশাহীতে চলছে জোর প্রস্তুতি চলছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর খোলা হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী চলবে পাঠদান। এরইমধ্যে প্রস্তুতি নিতে নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার জন্য প্রস্তুতিমূলক ব্যবস্থা আগামী ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে শেষ করার কথাও বলা হয়েছে।

নির্দেশনানুযায়ী রাজশাহী জেলাসহ নগরীর বিভিন্নি কলেজগুলোতে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন পরিচ্ছন্ন কর্মীরা। এতে কর্তৃপক্ষও বেশ সজাগ ভুমিকা পালন করছে।

এদিকে নির্দেশনার অন্যতম স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর নিশ্চিত করাকে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন কলেজ অধ্যক্ষরা।

কোভিড-১৯ মহামারির কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে রাজশাহীর সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে উচ্চ শিক্ষার সঙ্গেযুক্ত কলেজগুলোও। এতে উচ্চ শিক্ষায় পা বাড়ানো লাখ শিক্ষার্থী ঘরবন্দি জীবনযাপন করছে।

অনেকেই ঝুঁকে পড়েছেন কর্মের দিকে। এতে কলেজগুলোতে পর্যাপ্ত প্রস্ততি থাকলেও স্বাস্থ্য ঝুঁকির পাশাপাশি উচ্চ শিক্ষার প্রবেশের অপেক্ষায় থাকা কিছু শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষায় ধরে রাখা কেউ চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা।

তবে দীর্ঘ সময় ধরে ঘরবন্দি থাকার পর আবারও প্রিয় ক্যাম্পাসে ফিরে আসার খবরে স্বস্থি প্রকাশ করছে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীরা বলছে, তারা দীর্ঘ সময় ধরে ক্যাম্পাসের বাইরে। বাসায় বসে এক ধরনের একঘোরে জীবনযাপন করতে হচ্ছে। মোবাইলে অধিকাংশ সময় অতিবাহিত হচ্ছে। অনলাইন ক্লাস ও অ্যাসাইনমেন্টে তেমন স্বাচ্ছন্দ্য আসে না।

রাজশাহী মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী সজিব আহমেদ বলেন, করোনায় অনলাইন ক্লাস আর অ্যাসাইনমেন্টে একরকম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। অ্যাসাইনমেন্টের জন্য প্রতি সপ্তাহে কলেজে যেতে হয়। এতে শহরের বাইরে থেকে আসাটা কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়।

সজিব বলেন, আবার গ্রামের নেটওয়ার্কের সমস্যা থাকায় অনলাইন ক্লাস করেও তৃপ্তি পাওয়া যায় না। বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গেও আর তেমন দেখাশোনা হয় না। স্কুল খুলবে এটা আমার কাছে আনন্দের ব্যাপার। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই ক্লাসে বসতে চাই।

তিনি বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার খবরে অভিভাবকরাও স্বস্থি প্রকাশ করছেন। সন্তানের উজ্জ্বল ভবিষ্যত চিন্তা করে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই ক্লাসে দেখতে চান তারা।

অভিভাবকরা বলছেন- তাদের সন্তানরা দীর্ঘ সময় ধরে ক্লাসের বাইরে। অনলাইন ক্লাস ও অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে তাদের কার্যকর মূল্যায়ন সম্ভব হয় না। তারা অনলাইন ক্লাসে তেমন মনোযোগী হতে পারে না।

আবার দীর্ঘসময় ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বাইরে থাকায় মানসিকভাবেও দূর্বল হয়ে পড়ছে। সরকারের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়ে অভিভাবক হিসেবে নিজেদের প্রস্তুতিও নিচ্ছেন বলে জানাচ্ছেন তারা।

এদিকে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কলেজের পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা। স্বাস্থ্যবিধি ও করোনা ঝুঁকি নিরুপণে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিও নেয়া হচ্ছে।

কলেজগুলোর সিংহভাগ শিক্ষক-কর্মচারী করোনা টিকা নিয়েছেন। যারা বাকি আছেন তারাও রেজিষ্ট্রেশন সম্পন্ন করেছেন বলে জানাচ্ছেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা।

রাজশাহী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুল খালেক জানান, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী তাদের সকল প্রস্তুতিই প্রায় শেষ। এরআগেও তারা কয়েকবার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন।

আব্দুল খালেক জানান, নির্দেশনার আগেই পুরো ক্যাম্পাস ও ক্লাসরুম পরিষ্কার করা হয়েছে। ক্যাম্পাসের সামনে সচেতনতামূলক ব্যানারও টাঙানো হয়েছে। তবে আবারও পুরো ক্যাম্পাস ও ক্লাসরুম পরিষ্কার করা হচ্ছে।

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জানান, শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপের ব্যবস্থা তাদের আগেই ছিলো। যেটা ব্যবহার করা হচ্ছে। প্রয়োজনে আরও যন্ত্র কেনা হবে। কলেজের প্রবেশ পথেই হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের মাস্ক পরে আসতে বলা হয়েছে। তাদের অভিভাবকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, নগরীর বাইরে অবস্থিত কলেজগুলোতেও চলছে ধোয়া-মোছার কাজ। প্রয়োজনীয় প্রস্তুতির কথা জানাচ্ছেন তারা। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনানুযায়ী তারাও প্রস্তুতি নিচ্ছেন। অভিভাবকরাও ফোন করে তাদের থেকে পরামর্শ দিচ্ছেন।

শিক্ষার্থীদেরও সচেতন করা হচ্ছে। তবে গ্রামের দিকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীনতা বেশি। তাই আগে থেকে অনেকটাই কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে তৎপর রয়েছেন।

সাপ্তাহিক অ্যাসাইনমেন্টের দিনগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি তারা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছেন। যেটা সামনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললেও অব্যাহত থাকবে। তাদের প্রতিষ্ঠানের দু’একজন ছাড়া সকল শিক্ষক-কর্মচারী করোনা টিকা নিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, দেশের সকল মাধ্যমিক, স্কুল, কলেজ, উচ্চ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের জন্য স্বাস্থ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করাসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে স্বাস্থ্যসম্মতভাবে প্রস্তুত করার জন্য সংশোধিত গাইডলাইন দেওয়া হয়েছে।

যেখানে সকল ধরনের ভিড় এড়ানো, তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র ব্যবহার, শিক্ষার্থীদের আনন্দঘন পরিবেশ নিশ্চিত করা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখাসহ ১৯ দফা নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

কমিউনিটিনিউজ/ এমএএইচ

আরও সংবাদ

গোপনে ৪০ মণ সরকারি বই বিক্রি করলেন প্রধান শিক্ষক

কমিউনিটি নিউজ

এক দিনে আরও ২৬ জনের মৃত্যু

কমিউনিটি নিউজ

বাড়তে পারে গমের দাম

কমিউনিটি নিউজ

রাজশাহীতে শিক্ষিকার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

কমিউনিটি নিউজ

তিন মাস ২৪ দিন পর সবচেয়ে কম মৃত্যু

কমিউনিটি নিউজ

রাজশাহীতে বেড়েছে মাছের দাম, মুরগির কেজি ২৬০ টাকা

কমিউনিটি নিউজ