32 C
Dhaka
আগস্ট ১২, ২০২২

বিশ্বে আক্রান্ত সাড়ে ১৩ কোটিও বেশি

করোনাভাইরাস

কমিউনিটিনিউজ ডেস্ক: মহামারি করোনাভাইরাসে সংক্রমণের সংখ্যা বিশ্বব্যাপী বেড়েই চলেছে। ইতোমধ্যে বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২৯ লাখ ২৮ হাজার এবং সংক্রমিত হয়েছে ১৩ কোটি ৫২ লাখের বেশি মানুষ। গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে সারাবিশ্বে প্রায় ১৩ সহস্রাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছে।

আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য হিসেবে আজ শনিবার এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সারাবিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ১৩ কোটি ৫২ লাখ ৯৭ হাজার ০৬৪ জন। এই মহামারিতে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৯ লাখ ২৮ হাজার ৫৭৫ জনের। এখন পর্যন্ত প্রাণঘাতী এই ভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ১০ কোটি ৮৮ লাখ ৬০ হাজার ৯০২ জন।

বিশ্বে কোন দেশের অবস্থান কোথায়?

বিশ্বে করোনাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় ৫ লাখ ৭৪ হাজার ৮৪০ জন মারা গেছেন। এছাড়া করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩ কোটি ১৮ লাখ ২ হাজার ৭৭২ জনের। আর সুস্থ হয়েছেন ২ কোটি ৪৩ লাখ ৪৬ হাজার ৭৬৬ জন।

আরো পড়ুন:করোনায় পরিবেশ অধিদপ্তর মহাপরিচালকের মৃত্যু

করোনা সংক্রমণের লাগাম টানার উপায় কি?

পঞ্চম টেস্টেও রিজভীর করোনা পজিটিভ

যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ব্রাজিল। আক্রান্ত ও মৃত্যু বিবেচনায় দেশটির অবস্থান দ্বিতীয়। লাতিন আমেরিকার এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১ কোটি ৩৩ লাখ ৭৫ হাজার ৪১৪ জন। তাদের মধ্যে মারা গেছেন ৩ লাখ ৪৮ হাজার ৯৩৪ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ১৭ লাখ ৯১ হাজার ৮৮৫ জন।

তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। এশিয়ার মধ্যে ভারত করোনায় সবচেয়ে বিপর্যস্ত দেশ। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ১ কোটি ৩২ লাখ ২ হাজার ৭৮৩ জন। মারা গেছেন ১ লাখ ৬৮ হাজার ৪৬৭ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ১৯ লাখ ৮৭ হাজার ৯৪০ জন।

করোনাভাইরাস শনাক্তের তালিকায় চারে ইউরোপের দেশ ফ্রান্স। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৪৯ লাখ ৮০ হাজার ৫০১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছেন ৯৮ হাজার ৩৯৫ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৩ হাজার ৬৩৯ জন।

তালিকার পঞ্চম স্থানে থাকা রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত ১ লাখ ২ হাজার ২৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনাক্ত ৪৬ লাখ ২৩ হাজার ৯৮৪ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৪২ লাখ ৪৮ হাজার ৭০০ জন।

এরপর করোনাভাইরাস শনাক্তের দিক থেকে তালিকায় রয়েছে যথাক্রমে যুক্তরাজ্য, ইতালি, তুরস্ক, স্পেন ও জার্মানি। তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৩৩তম।

কমিউনিটিনিউজ/ এমএএইচ

করোনায় পরিবেশ অধিদপ্তর মহাপরিচালকের মৃত্যু

কমিউনিটিনিউজ ডেস্ক: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. এ. কে. এম. রফিক আহাম্মদের মৃত্যু হয়েছে (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। শনিবার (১০ এপ্রিল২০২১) ভোর সাড়ে ৪টায় রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন – পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা দীপংকর বর ।

এর আগে ২৩ মার্চ তার করোনা টেস্টের রেজাল্ট পজিটিভ আসে। পরে ২৭ মার্চ তাকে রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে দীর্ঘ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর অবস্থার অবনতি হলে ৮ এপ্রিল দিবাগত রাতে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়। পরে তিনি আজ ভোরে মারা যান।

আরো পড়ুন:

তিনি জানান, ড. এ কে এম র‌ফিক আহাম্মদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার এবং সচিব জিয়াউল হাসান এনডিসি। ড. এ কে এম রফিক আহাম্মদ ১০ম বিসিএস ফোরামের সদস্য এবং প্রশাসন ক্যাডারের অতিরিক্ত সচিব ছিলেন।

উল্লেখ্য,  ডাঃ এ.কে.এম. রফিক আহমদ ২২ মে ২০১৯ এ মহাপরিচালক হিসাবে পরিবেশ অধিদফতরে যোগদান করেছিলেন।  ১৯৯১ সালে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রশাসন) ক্যাডারে কর্মজীবন শুরু করেছিলেন এবং গত ২৭ বছরে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্র ও কেন্দ্রীয় পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। এই পোস্টের অব্যবহিত আগে তিনি দুবাই-বাংলাদেশের কনসুলেট জেনারেলের বাণিজ্যিক পরামর্শদাতা হিসাবে সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ সম্পর্কিত দ্বিপক্ষীয় অর্থনৈতিক বিষয় নিয়ে কাজ করেছেন।

এর আগে তিনি তৎকালীন পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র সহকারী সচিব এবং মাননীয় মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব হিসাবে কাজ করেছিলেন। ডাঃ আহমদ ২০১৪ সালে পরিচালক (জলবায়ু পরিবর্তন ও আন্তর্জাতিক সম্মেলন) হিসাবে পরিবেশ অধিদফতরেও কাজ করেছিলেন।

তিনি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাণিবিদ্যায় স্নাতক (অনার্স) এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন। পরবর্তীতে, তিনি ২০০১ সালে অ্যাডিলয়েড, অস্ট্রেলিয়া ইন এনভায়রনমেন্টাল স্টাডিজ-এ একটি মাস্টার প্রোগ্রাম গ্রহণ করেছিলেন। তিনি ২০০৭ সালে অ্যাডিলেড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একই বিভাগে পিএইচডি সম্পন্ন করেছিলেন। ২০০৯ সালে অ্যাডিলেড বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবেশগত প্রভাব মূল্যায়ণ বিষয়ে একটি পোস্টডক্টোরাল গবেষণা গ্রহণের জন্য তিনি একটি প্রচেষ্টা গবেষণা ফেলোশিপ পেয়েছিলেন। ডাঃ আহমদ যে কোন পরিবেশগত বিষয়ে কৌশল বা কর্ম পরিকল্পনা প্রণয়ন করার দক্ষতা অর্জন করে দূষণ নিয়ন্ত্রণ এবং পরিবেশ ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে জাপানে তিন মাসের একটি বিস্তৃত প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন। তার জার্নাল নিবন্ধগুলির তিনটি আন্তর্জাতিক প্রকাশনা রয়েছে যা তার পণ্ডিত রচনার বৌদ্ধিক দক্ষতা দেখায়।

ডঃ আহমদ বৈশ্বিক উষ্ণায়ন, ওজোন স্তর হ্রাস, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ, দূষণ নিয়ন্ত্রণ, পরিবেশ শিক্ষা, প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবস্থাপনার মতো বিভিন্ন পরিবেশ, সামাজিক, শিক্ষামূলক ও অর্থনৈতিক বিষয় নিয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সেমিনার, কর্মশালা, সম্মেলন এবং সভাগুলিতে সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছিলেন। , শিক্ষা ব্যবস্থাপনা এবং অর্থনৈতিক / বিনিয়োগ ফোরাম। শিক্ষা, প্রশিক্ষণ এবং পেশাদার ভূমিকার জন্য তিনি বিশেষজ্ঞ ও পেশাদারদের একটি ভাল নেটওয়ার্কের সাথে সংযোগ স্থাপনের জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ঘুরে দেখেন। বর্তমানে ড। আহমদ বাংলাদেশ সরকারের অতিরিক্ত সচিব পদে অধিষ্ঠিত আছেন।

কমিউনিটিনিউজ / এমএএইচ

আরও সংবাদ

দেশে কতদিনের জ্বালানি আছে তা জানালো বিপিসি

কমিউনিটি নিউজ

যশোর অঞ্চলে টেকসই কৃষি সম্প্রসারণ প্রকল্প চালু হবে ২০২৭ সালে

কমিউনিটি নিউজ

বিশ্ববাজারে কমেছে গম ও ভুট্টার দাম

কমিউনিটি নিউজ

জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রভাবে যশোরে কাঁচাবাজারে আগুন

কমিউনিটি নিউজ

সুইস ব্যাংকের কাছে নির্দিষ্ট কোনও তথ্য চায়নি বাংলাদেশ: রাষ্ট্রদূত

কমিউনিটি নিউজ

শ্রীলঙ্কায় এক ধাক্কায় বিদ্যুতের দাম বাড়লো ৭৫ শতাংশ

কমিউনিটি নিউজ